কালীগঞ্জে ভারী যানে রাস্তা ক্ষত-বিক্ষত, চরম দুর্ভোগে এলাকাবাসী

কালীগঞ্জ

কালীগঞ্জে মালবাহী লরির বেপরোয়া চলাচলে রাস্তাঘাটের বারোটা বেজে গেছে। বিশেষ করে মাটি পরিবহনে ব্যবহৃত লরি ও ট্রাক্টরের কারণে সড়ক ক্ষত-বিক্ষত হয়ে যান চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সারা বছরই বিভিন্ন রাস্তায় অনবরত বালি ও মাটি বহন করায় রাস্তাগুলো চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

সামান্য বৃষ্টি হলে রাস্তাগুলোতে সৃষ্টি হচ্ছে খানাখন্দ। প্রতিনিয়ত ঘটছে ছোট-বড় নানা দুর্ঘটনা। কৃষি জমি থেকে মাটি কেটে বিভিন্ন ইট ভাটায় বিক্রির ফলে নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, কালীগঞ্জ উপজেলার পৌর এলাকা ও আশে পাশের গ্রাম থেকে কৃষি জমির টপ সয়েল (উপরিভাগের মাটি) কেটে এনে ইটভাটায় ইট তৈরির কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে। পৌরসভার সরকারী খাদ্য গুদাম থেকে শুরু করে, বালিগাঁও এবং শহীদ ময়েজউদ্দীন সেতু পর্যন্ত শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে গড়ে উঠেছে বালির গদি। বালির গদি থেকে উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে অবৈধ ট্রাক্টর ও লরিতে করে অবৈধভাবে পরিবহন করছে বাড়ি তৈরির বালি, ইটা, রড, সিমেন্টসহ বিভিন্ন নির্মাণ সামগ্রী। ট্রাক্টরগুলো বালি ও মাটির উপরে কোন প্রকার পলিথিন বা চটের আবরণ ছাড়াই পরিবহন করছে।

উপজেলার সীমানাঘেঁষা পূর্ব পাশে বালিগাঁও প্রধান রাস্তা হতে বাইপাস পর্যন্ত সড়কটি দিয়ে বালি ও মাটি ভর্তি ট্রাক, ট্রাক্টর ও লরি অনবরত চলাচল করায় সামান্য বৃষ্টিতেই কাদায় পরিণত হয়। বর্তমানে রাস্তায় পিচের কোনো অস্তিত্ব নেই। এই রাস্তা দিয়ে অতিরিক্ত ট্রাক, ট্রাক্টর ও লরি চলায় পিচ উঠে কাঁদা-মাটিতে পরিনত হয়েছে। শুষ্ক মৌসুমে রাস্তাটি ধুলিতে এলাকা অন্ধকার হয়ে পড়ে। এই রাস্তাাটি সাধারণ জনগণসহ বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের একমাত্র রাস্তা। ফলে গ্রীষ্ম বর্ষায় পথচারীদের এই রাস্তায় চলাচল করতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

এ বিষয়ে কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) খন্দকার মু. মুশফিকুর রহমান বলেন, ইট-বালুবাহী অবৈধ লরির বেপরোয়া চলাচলে একদিকে স্থানীয়রা যেমন চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন ,অন্যদিকে ওইসব লরি সরকারের কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত রাস্তা-ঘাট অসময়ে নষ্ট করে দিচ্ছে। এতে করে সরকারের উন্নয়ন স্থানীয়দের কাছে প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। আইন-শৃঙ্খলা সভায় সর্বসম্মতিক্রমে উপজেলায় ইট-বালুবাহী লরি চলাচল নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। যারা আইন মানবে না তাদেরকে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে আইনের আওতায় আনা হবে।

এ ব্যাপারে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ ছাদেকুর রহমান আকন্দ বলেন, ধুিল-বালিপূর্ণ সড়কে চলাচলের কারণে পথচারীদের নিউমোনিয়া ও শ্বাসকষ্টসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

Leave a Reply